Wednesday, March 13, 2019
Home > মহানগর > বিএনপির একজন শেখ হাসিনা দরকার : আসল বিএনপি’

বিএনপির একজন শেখ হাসিনা দরকার : আসল বিএনপি’

বিএনপির সমস্যা নেতৃত্বে- মনে করেন বিএনপি পুনর্গঠনের ডাক দিয়ে মাঠে নামা ‘আসল বিএনপি’র প্রধান কামরুল হাসান নাসিম। বলেছেন, একজন শেখ হাসিনা দরকার বিএনপির।

মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক সমাবেশে এই কথা বলেন নাসিম। ‘রাজনীতির বাঁকা পথে নয়, সোজা পথে হাঁটবে বিএনপি’ স্লোগানকে সামনে রেখে সমাবেশটি করা হয়।

নাসিম বলেন, ‘আমি অনেক বছর ধরে বলছি, রাজনৈতিক বলয়ের মধ্যে প্রতিপক্ষ দলের প্রধান আওয়ামী লীগ সভানেত্রী মন্দের ভালো নেতা। আমাদের বলয়ে একজন শেখ হাসিনা নেই।’

‘আমি চেয়েছি, আমাদের বলয়েও একজন শেখ হাসিনা দরকার। এই চাওয়াটাই আমার অন্যায়। তার মানে কী হয়? পরিবারতন্ত্রেরও জয় হয়।’

বিএনপি কারও ব্যক্তিগত সম্পত্তি নয় এমন মন্তব্য করে নাসিম বলেন, ‘কেউ যদি মনে করে থাকেন, একজন তারেক রহমানকে খুশি করতে আমরা নির্বাচনের রাস্তায় হাঁটব না, তাহলে ভুল করবেন।’

১১৫০ জন থেকে বাছাই করে ৩২০ জন প্রার্থী প্রস্তুত রাখার কথাও জানান নাসিম।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে ‘চাকরিজীবী’ হিসেবে উল্লেখ করেন আসল বিএনপির নেতা। বলেন, ‘তিনি (মির্জা ফখরুল) কোনও রাজনীতিবিদ নন। তার কাছে প্রেসক্রিপশন আসে, তিনি কথা বলেন।’

‘আপনি (মির্জা ফখরুল) একটি দারুণ ভূমিকা পালন করেন। বিএনপির ক্রান্তিকালীন সংকটের মধ্যে আপনি তাদের মধ্যে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেন। আপনি ৩০০ আসনের সবাইকে বলেন নির্বাচনের প্রস্তুতি গ্রহণ করতে। কিন্তু আমি জানি তিনি বলবেন না। মা এবং পুত্রকে বাঁচাতে গিয়ে ওই ব্যারিস্টারের হাত ধরে ব্যক্তিকেন্দ্রিক

রাজনীতি আপনারা করতে পারবেন না।’

‘আমি চার বছর ধরে বলছি, আসেন ঐক্য করেন। অনেক তো থ্রেট করেন, গুলি করবেন ও মেরে ফেলবেন। যদি মনে করে থাকেন, ওই অসৎ চরিত্রের শীর্ষ নেতৃত্বে আপনারা দেশ পরিচালনা করবেন, তাহলে কামরুল হাসান নাসিম এই পথসভা থেকে, কালকের সমাবেশে, পরের দিন নয়া পল্টন কার্যালয়ে, পরদিন গুলশান কার্যালয়ে আমরা গণতান্ত্রিক উপায়ে স্থায়ী কমিটিকে নিয়ে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলকে পুনর্গঠন করে ছাড়ব।’

‘মির্জা ফখরুল, আপনি সামনে আসুন। ব্যারিস্টার, আইনজ্ঞ, উত্তর পাড়ার দিকে তাকিয়ে থাববেন না। যারা উত্তর পাড়ার দিকে তাকিয়ে আছেন,তাদেরকে সামাজিকভাবে প্রতিরোধ করতে হবে।’

ড. কামালকে উদ্দেশ্য করে নাসিম বলেন, ‘মূল ধারার বিএনপির ৫০-৬০ হাজার সদস্য নিয়ে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে রাষ্ট্রপতি বা প্রধানমন্ত্রী গেলাম, পেছন থেকে তারেক রহমান গ্রেনেড চালিয়ে দিলেন। ভুল করবেন না কামাল হোসেন। আপনি বিপদে পড়বেন। তারেক জিয়াউর রহমানের কু সন্তান। ও বিএনপির নেতৃত্বে আমি বেঁচে থাকতে কোনো দিন আসতে পারবে না। তারেক রহমান রাজনীতির মন্দ সত্ত্বা।’

‘জাতীয় ঐক্যের’ আলোচনা নিয়ে নাসিম বলেন, ‘কিসের ঐক্য? ভোটের? এই ঐক্য আমাদের দরকার নাই। ঐক্য হবে বাংলাদেশের সংবিধান ইস্যুতে, বাংলাদেশের জাতীয়তাবাদ ইস্যুতে, বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ গণতান্ত্রিক দলের মধ্যে ঐক্য হওয়া দরকার।’

পথ সমাবেশে বিএনপির প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য মুক্তিযোদ্ধা মনসুর আলী সরকার যোগ দেন। তিনিও সেখানে বক্তব্য রাখেন। বলেন, অস্ত্র হাতে মুক্তিযুদ্ধ করে আমার এলাকাকে শত্রু মুক্ত করেছিলাম। এমন বাংলাদেশ দেখার জন্য না। জিয়াউর রহমান যে বিএনপি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন সেই বিএনপি আজ  বাঁকা পথে। আমরা বাঁকা পথে চলতে চাই না, আমরা সোজা পথে চলতে চায়।’

পথসমাবেশ থেকে চলতি মাসে রাজধানীতে সমাবেশ করারও ঘোষণা দেন নাসিম। বলেন, ‘১৭ থেকে ৩০ অক্টোবর রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে পথ নাটক করা হবে। এর মধ্যে সমাবেশের তারিখ ঘোষণা করা হবে। পরে মহাসমাবেশ করা হবে।’

%d bloggers like this: