শীর্ষ সন্ত্রাসী শুটার রিয়াজসহ ৪ সহযোগী গ্রেপ্তার

হত্যা মামলাসহ ১৫টি মামলার আসামি নারায়ণগঞ্জের শীর্ষ সন্ত্রাসী রিয়াজ বাহিনীর মূলহোতা রিয়াজুল ইসলাম ওরফে শুটার রিয়াজ ও তার ৪ সহযোগীকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) সকাল ১০টায় রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এ তথ্য দেন।

তিনি জানান, বুধবার (৬ এপ্রিল) রাতে র‌্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা ও র‌্যাব-৩ এর একটি অভিযানিক দল নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ ও সোনারগাঁও এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন-পেশাদার খুনি ও অবৈধ অস্ত্রধারী শীর্ষ সন্ত্রাসী মো. আব্দুল লতিফ মিয়ার ছেলে রিয়াজুল ইসলাম ওরফে শুটার রিয়াজ (২২), জাকির হোসেনের ছেলে মো. জাহিদুল ইসলাম ওরফে কালা ভাগিনা (২৩), জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে মারুফ হোসেন মুন্না (২৩), ইয়ার হোসেনের ছেলে মো. সেলিম (২৩), মো. ফিরোজ মিয়ার ছেলে মো.  মাহবুব মিয়া (২৩)। অভিযানে ৩টি বিদেশি পিস্তল, ৩টি ম্যাগাজিন, ১২ রাউন্ড গুলি, ৫টি ধারালো দেশিয় অস্ত্র, ১টি মোটর সাইকেল এবং ৬০০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব জানায়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, আসামিরা নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ, সোনারগাঁও ও তার আশপাশ এলাকায় আধিপত্য বিস্তার, মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড পরিচালনা করার কাজে উদ্ধারকৃত অবৈধ অস্ত্রসমূহ ব্যবহার করে আসছিল। তাদের সন্ত্রাসী দলের সংখ্যা ১০-১৫ জন।

এলাকায় ত্রাস সৃষ্টির জন্যে তারা অস্ত্র নিয়ে মহড়া দিত। এছাড়াও রিয়াজের নেতৃত্বে এই সন্ত্রাসী দলের সদস্যরা বিভিন্ন গ্রুপে বিভক্ত হয়ে বর্ণিত এলাকায় জমি দখল, চাঁদাবাজি, মার্কেট ও বাসস্ট্যান্ডে চাঁদাবাজি, ছিনতাই, ডাকাতি, অপহরণ ও মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন অপরাধ কার্যক্রম পরিচালনা করত।

শুটার রিয়াজ সোনারগাঁও এর একটি বিদ্যালয় হতে অষ্টম শ্রেণিতে অধ্যয়নকালে ২০১৬ সালে তার বড় ভাইয়ের মাধ্যমে সন্ত্রাসী কার্যক্রমে সম্পৃক্ত হয়।  রূপগঞ্জ ও সোনারগাঁও এলাকায় চাঁদাবাজি, ভূমি দখল ও ভাড়ায় মারামারি করতে গিয়ে স্থানীয় এক ব্যক্তির মাধ্যমে অপরাধ জগতের লোকজনের সাথে তার সখ্যতা গড়ে ওঠে। একপর্যায়ে উক্ত ব্যক্তির সাথে মনোমালিন্য হলে সে নিজেই একটি সশস্ত্র বাহিনী গড়ে তোলে এবং তার সহযোগীদের অবৈধ অস্ত্র সরবরাহ শুরু করে।