Thursday, October 11, 2018
Home > সারা বাংলাদেশ > নারায়ণগঞ্জে একই পরিবারের ৫ জনকে গলা কেটে হত্যা

নারায়ণগঞ্জে একই পরিবারের ৫ জনকে গলা কেটে হত্যা

নারায়ণগঞ্জে বসতবাড়িতে ঢুকে দুই শিশু ও নারীসহ একই পরিবারের পাঁচজনকে নৃশংসভাবে গলা কেটে হত্যার ঘটনা ঘটেছে।

শনিবার (১৬ জানুয়ারি) রাত পৌনে ১০টার দিকে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের আওতাধীন বাবুরাইল এলাকার একটি বাসার নিচ তলা থেকে তাদের গলাকাটা মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহতরা হলেন, তাসলিমা (৩৫), তার ছেলে শান্ত (১০), মেয়ে সুমাইয়া (০৫), তাসলিমার ভাই মোরশেদুল (২২) ও জা লামিয়া (২৫)।

বাসার ঠিকানা- ২নং বাবুরাইল, বাসা নং ১৩১/১১; যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী ইসমাইল হোসেনের বাড়ি। বাড়িটি স্থানীয় খানকাহ শরীফের পাশে। গতবছর (২০১৫ সাল) নভেম্বরে এ বাড়িতে ভাড়া আসেন তারা।

নিহত তাসলিমার মা মোরশেদা বাংলানিউজকে বলেন, গতকাল (১৫ জানুয়ারি-শুক্রবার) রাতে ছেলে মোরশেদুলের সঙ্গে তার শেষ কথা হয়। এরপর থেকে তার মোবাইল ফোনটি ছিল বন্ধ।

তিনি জানান, লামিয়ার স্বামী শরীফ কিশোরগঞ্জ থেকে এদিন সন্ধ্যায় ওই বাসায় আসেন। তিনি এসে দরজা নক করেন। কিন্তু কেউ খোলে না। কিছু সময় অপেক্ষার পর রাতে বাড়ির মালিকের চাচাতো ভাই হাজী মোহাম্মদ হোসেনের সহযোগিতায় দরজা ভেঙে মরদেহ দেখতে পান। অবশেষে খবর দেন- স্থানীয়দের এবং পুলিশকে।

নারায়ণগঞ্জের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) ফোরকান শিকদার বাংলানিউজকে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তিনিসহ র‌্যাব ও জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে রয়েছেন। তারা আলামত সংগ্রহের কাজ করে যাচ্ছেন। বিস্তারিত পরে জানানো যাবে।

এদিকে, ঘটনাস্থলে উপস্থিত তাসলিমার ননদ হাজেরা বেগম নিহতদের নাম, পরিচয় ও সম্পর্কের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

স্থানীয় ওয়ার্ড কমিশনার হাজি ওবায়েদুল্লাহ জানান, ঘটনাটি কখন ঘটেছে সেটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

বাবুরাইলের যে বাড়িতে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে তার মালিক ইসমাইল হোসেন আমেরিকা প্রবাসী। তাসলিমার পরিবার ছয়তলা বাড়িটির নিচ তলার ফ্ল্যাটে ভাড়া থাকতেন। তাসলিমার স্বামীর নাম শফিক, তিনি রাজধানী ঢাকায় গাড়ি চালানোর কাজ করেন বলে জানান তাসলিমার খালাতো ভাই দেলোয়ার। খরব পেয়ে তিনি এসেছেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার (১৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যা থেকে ওই ফ্ল্যাটের দরজা তালাবদ্ধ ছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: